মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কার্যবিবরণী ও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত

 

এপ্রিল ২০১৪ খ্রিঃ মাসে চতুর্থ উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা-এর  প্রথম/মাসিক সভার কার্যবিবরণীঃ

 

সভাপতিঃ জনাব মোঃ দেলোয়ার হোসেন ভূঞা, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

সভার স্থানঃ  উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন ।

সভার তারিখঃ ০৯ এপ্রিল ২০১৪ খ্রিঃ, সময়ঃ সকাল-১১.০০ ঘটিকা ।

 

উপস্থিত সদস্যবৃন্দঃ পরিশিষ্ট-ক- দ্রষ্টব্য

অনুপস্থিত সদস্যবৃন্দঃ পরিশিষ্ট-খ- দ্রষ্টব্য  

 

          চতুর্থ উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা এর প্রথম সভা শুরুর পূর্বেই পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান জনাব মোঃ দেলোয়ার হোসেন ভূঞা, ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোঃ মোফাজ্জল হোসনে ভূঞা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেগম জাহানারা রোজি-কে ফুলের তোরা দিয়ে বরণ করে নেয়া হয় । অতঃপর পরিষদের চেয়ারম্যান  সভাপতির আসন গ্রহণ করেন ।

         সভাপতি জনাব মোঃ দেলোয়ার হোসেন ভূঞা,চেয়ারম্যান,উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান এবং পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, গীতা পাঠ ও বাইবেল পাঠের মধ্য দিয়ে সভার সূচনা করা হয় । তিনি  কেন্দুয়া উপজেলায় নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মোহাঃ রুহুল আমিন-কে সভা পরিচালনার জন্য অনুরোধ জানান ।

         উপজেলা নির্বাহী অফিসার সভাপতি-কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮ (২০০৯ সালের পুনঃপ্রচলিত ও সংশোধিত) এর ধারা ১৮ ও উপজেলা পরিষদের (কার্যক্রম বাস্তবায়ন)বিধিমালা, ২০১০ অনুসারে অদ্যকার চতুর্থ উপজেলা পরিষদের প্রথম সভা আহ্বান করা হয় ।

        তিনি সম্মানিত সকল উপিস্থিতিকে সু-স্বাগত জানিয়ে অদ্যকার সভার আলোচ্যসূচী অনুসারে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান ।  

 

ক্রমিক নং

অলোচ্য বিষয়

আলোচনা 

সিদ্ধান্ত

বাস্তবায়ন

০৫

হাট-বাজার ইজারা

জনাব মোহাঃ রুহুল আমিন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সভায় বলেন যে, ১৪২১ বাংলা সনের জন্য হাট-বাজার ইজারার নিমিত্ত চতুর্থ ডাকে ০৭ (সাত) টি দরপত্র পাওয়া যায় ।  এর মধ্যে ০৪ (চার) টি বাজার যেমনঃ (১) সাধার পশুর হাট (২) সাজিউড়া বাজার (৩) গন্ডা বাজার এবং (৪) আমলীতলা পশুর হাট এর দরপত্রের উদ্বৃত দর সরকারী মূল্যের সমান বা বেশী হওয়ায় হাট-বাজার নীতিমালার ৩ অনুচ্ছেদ মোতাবেক দরপত্র মূল্যায়ন কমিটিতে পেশ করা হবে এবং বাকী ০৩ (তিন) টি বাজার যেমনঃ শিবপুর হাসকান্দা শিমূলতলী পশুর হাট (২) বেখৈরহাটী বাজার ও (৩) রোয়াইলবাড়ী পশুর হাট এর দখিলকৃত দরপত্র সমূহে সর্বোচ্চ উদৃত দর সরকারী মূল্যের কম হওয়ায় হাটি-বাজার নীতিমালার ২.১০ অনুচ্ছেদের আলোকে কাংখিত মূল্য না পাওয়ার কারন

 

 

 চলমান পাতা-০২

-০২-

 

 

 

উল্লেখপূর্বক  পরিষদ সভার কার্যবিবরণী সহ প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক মহোদয় বরাবরে প্রেরণের বিধান রয়েছে । তিনি উক্ত বিধানের আলোকে আলোচ্য ০৩ টি বাজারের বিষয়ে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য  প্রস্তাব করেন । উক্ত ০৩ টি বাজারের দাখিলকৃত দরপত্রসমূহের বিবরণী ও বিগত ০৩ বছরের গড় মূল্য/ সরকারী মূল্য সভায় পেশ করেন ।

 

 

৪র্থ ডাকে দাখিলকৃত দরপত্রসমূহের বিবরণী নিম্নরূপঃ

 

বাজারের নামঃশিবপুর হাসকান্দা শিমূলতলী পশুর হাট ।

ক্রমিক নং

দরপত্র দাতার নাম

উদৃত দর

তিন বছরের গড়মূল্য/ সরকারী মূল্য

মন্তব্য

০১

জনাব মোঃ আব্দুল আজিজ, পিতা-মৃত নবী নেওয়াজ, সাং- হাসকান্দা,কেন্দুয়া ।

১৬,০০,৫৫১/- ( ষোল লক্ষ পাচঁশত একান্ন) টাকা

২১,০০,৫৫১/- (একুশ লক্ষ পাচঁশত একান্ন)) টাকা।

১ম ও ২য় ডাকে কোন দরপত্র দাখিল হয়নি । ৩য় একটি দরপত্র দাখিল হয়েছিল যার উদৃত ছিল দর ১০,০০,৫৫১/- (দশ লক্ষ পাচঁশত একান্ন) টাকা

০২

জনাব মোঃ আবুল কালাম, পিতা- হাজ্বী আঃ ছোবান, সাং- শিবপুর,কেন্দুয়া ।

১২,৯৭,৫০১/- ( বার লক্ষ সাতানব্বই হাজার পাচঁশত এক) টাকা ।

 

বাজারের নামঃ বেখৈরহাটী বাজার

ক্রমিক নং

দরপত্র দাতার নাম

উদৃত দর

তিন বছরের গড়মূল্য/ সরকারী মূল্য

মন্তব্য

০১

জনাব সাহাব উদ্দিন, পিতাঃ মৃত এলাল উদ্দিন, সাং- বাহাগুন্দ, বেখৈরহাটী, কেন্দুয়া।

৩,২৬,৬৬৭/- (তিন লক্ষ ছাব্বিশ হাজার ছয়শত সাতষট্টি) টাকা।

৫,৯০,০৩৪/- (পাচঁ লক্ষ নব্বই হাজার চৌত্রিশ) টাকা

১ম. ২য় এবং তয় ডাকে কোন দরপত্র দাখিল হয়নি।

০২

জনাব আঃ কাদির, পিতাঃ মৃত আমোদ আলী, সাং- দৈলা, বেখৈরহাটী,কেন্দুয়া।

৬,৬৬৭/- ( ছয় হাজার ছয়শত সাতষট্টি) টাকা

 

বাজারের নামঃ রোয়াইলবাড়ী পশুর হাট ।

ক্রমিক নং

দরপত্র দাতার নাম

উদৃত দর

তিন বছরের গড়মূল্য/ সরকারী মূল্য

মন্তব্য

০১

জনাব মোঃ তাজুল ইসলাম, পিতাঃ কুলধর সরকার, সাং-চর আমতলা, কেন্দুয়া।

১,৫২,০০০/- ( এক লক্ষ বায়ান্ন হাজার) টাকা

২,১১,৬০০/- ( দুই লক্ষ এগার হাজার ছয়শত) টাকা

১ম, ২য় এবং তয় ডাকে কোন দরপত্র দাখিল হয়নি।

০২

জনাব আঃ মজিদ তালুকদার পিতাঃ কংশের আলী, সাং- আমতলা, কেন্দুয়া ।

১,০৫,০০০/- ( এক লক্ষ পাচঁ হাজার) টাকা

চলমান পাতা-০৩

-০৩-

ক্র নং

অলোচ্য বিষয়

আলোচনা

সিদ্ধান্ত

বাস্তবায়ন

০৫

হাট-বাজার ইজারা

চেয়ারম্যান, গড়াডোবা ইউপি সভায় বলেন যে, শিবপুর হাসকান্দা শিমূলতলী পশুর হাট একটি নতুন সায়ভূক্ত হাট । বিগত বছর রেশাশি করে  ০২ টি পক্ষ ইজারায় অংশ গ্রহণ করেন। ফলে  উক্ত বাজারটি ১৪২০ সালে উচ্চ মুল্যে ইজারা  হয় । উক্ত ইজারা গ্রহিতা ২১,০০,৫৫১/- টাকায় ইজারা নিয়ে লোকসান দেন । ফলে এ-বছর সরকারী মূল্যে উক্ত বাজারটি ইজারা নিতে কেহ আগ্রহী নয়। ১৬ লক্ষ টাকায় ইজারা প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি প্রস্তাব করেন কারণ খাস আদায়ে  উক্ত ডাকের চেয়ে অনেক কম মূল্য পাওয়া যাবে ।

চেয়ারম্যান, দল্পা এবং রোয়াইলবাড়ী-আমতলা ইউপি সভায় বলেন যে, বেখৈরহাটী এবং রোয়াইলবাড়ী পশুর হাটের আশে-পাশে বেশ কয়েকটি পশুর হাট হওয়ায় এবং বাজারদ্বয়ে পশু কম বেচা-কেনা হওয়ায় ইজারা গ্রহণে আগ্রহী প্রার্থী কমে গেছে এবং লোকসানের ভয়ে কেহ  সরকারী মূল্যে ডাক দিতে চায় না । চেয়ারম্যানদ্বয় বিধি মোতাবেক বাজার ০২ টি ইজারা প্রদানের পক্ষে মত প্রকাশ করেন।

বিস্তারিত আলোচনার পর সরকারি হাট-বাজারসমূহের ব্যবস্থাপনা, ইজারা পদ্ধতি এবং উহা হতে প্রাপ্ত আয় বন্টন সম্পর্কিত নীতিমালা/২০১১ এর ২.১০ অনুচ্ছেদের আলোকে (১)শিবপুর হাসকান্দ শিমূলতলী পশুর হাট (২) বেখৈরহাটী বাজার এবং (৩) রোয়াইলবাড়ী পশুর হাট ইজারা প্রদানের নিমিত্ত  সরকারী/কাংখিত মূল্য না পাওয়ার কারণ সম্বলিত পৃথক পৃথক ০৩ টি প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক,নেত্রকোণা মহোদয় বরাবরে প্রেরণের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার-কে অনুরোধ জানিয়ে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন যে, ১৪২০ বাংলা সনের (১) রামপুর বাজার (২) সেনের বাজার (৩) শিবপুর হাসকান্দা শিমূলতলী পশুর হাট  (৪) নওপাড়া বাজার ইজারার সাকুল্য টাকা এখনো পরিশোধ হয়নি । তাছাড়া ১৪২১ বাংলা সনের ইজারার (১) চিরাং বাজার (২) রামপুর বাজার (৩) সেনের বাজার (৪) নওপাড়া বাজার সমূহের ইজারার টাকা এখনো পরিশোধ করেন নি । যা হাট-বাজার নীতিমালার পরিপন্থি ।

সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ ১৪২০ সনের ইজারার টাকা পরিশোধের জন্য শেষবারের মত পত্র দেয়ার কথা বলেন এবং ১৪২১ সনের ইজারার টাকা দ্রুত পরিশোধের বিষয়ে  ইজারাদারের সাথে কথা বলবেন এবং সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করবেন ।

 

বিস্তারিত আলোচনার পর ১৪২০ সনের ইজারা টাকা পরিশোধের জন্য সংশ্লিষ্ট ইজারাদারকে শেষবারের জন্য পত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত হয় এবং পরবর্তীতে  সরকারী টাকা আদায়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয় ।

১৪২১ বাংলা সনের ইজারার টাকা দ্রুত পরিশোধের জন্য সংশ্লিষ্ট ইজারাদারকে উদ্ভোদ্ধ করার জন্য ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দকে অনুরোধ জনানো হয় ।

 

চলমান পাতা-০৪

 

 

-০৪-

০৬

পরিষদের বাসা বাড়ী ও অফিস সংস্কার

উপজেলা প্রকৌশলী সভায় বলেন যে, চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার,কেন্দুয়া মহোদয়গণের অফিসসমূহ রং করণ, দরজা-জানালা মেরামতসহ প্রয়োজনীয় সংস্কার দরকার এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের বাসাবাড়ীর রং করণ ও দরজা-জানালা মেরামত করা প্রয়োজন।

নবগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন যে, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের অফিসে কোন সরঞ্জাম নেই। তিনি প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ক্রয়ের কথা বলেন । তাছাড়া তিনি উপজেলা পরিষদের নিরাপত্তার জন্য বাউন্ডারী ও গেইট নির্মাণ জরুরী প্রয়োজন বলে সভায় জানান ।

বিস্তারিত আলোচনান্তে নিম্নবর্ণিত ০৪ (চার) টি প্রকল্প পিআইসি এর মাধ্যমে রাজস্ব তহবিলের অর্থায়নে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং প্রকল্প কমিটি অনুমোদনের জন্য  চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ক্ষমাত অর্পন করা হয় । তাছাড়া উপজেলা পরিষদের বাউন্ডারী ও গেইট নির্মাণের নিমিত্ত প্রাক্কলন প্রস্তুত করতঃ আগামী সভায় উপস্থাপনের জন্য উপজেলা প্রকৌশলীকে অনুরোধ জানানো হয় ।

 


                (১)  চেয়ারম্যান,উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস কক্ষ রং করণ ও দরজা-জানালা মেরামতসহ

                 সংস্কার- ১,০০,০০০/-

          (২)  ০২ (দুই) ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয়ের অফিস কক্ষ  রং করণ ও দরজা-জানালা মেরামতসহ সংস্কার-১,০০,০০০/-

(৩)   উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সবভবন রং করণ ও দরজা-জানালা মেরমত সহ সংস্কার-১,০০,০০০/-

(৪)    উপজেলা নির্বহী অফিসারের বাস ভবনের অফিসের জন্য  অফিস সরঞ্জাম হিসেবে ০১ টি রিফ্রিজারেটর, ০১ টি

        সোফা সেট ও ০১ টি আই,পি,এস ক্রয় প্রকল্প-১,০০,০০০/-

 

ক্রমিক নং

অলোচ্য বিষয়

আলোচনা

সিদ্ধান্ত

বাস্তবায়ন

০৭

বিভাগীয়

উপজেলা কৃষি, ভ্যাটেনারী সার্জন, মৎস্য, মহিলা বিষয়ক, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তাগণ নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় এবং নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার-কে শুভেচ্ছ জানিয়ে  বিভাগীয় বক্তব্য দেন এবং তাদের বর্তমানে কোন সমস্যা নেই বলে জানান ও উপজেলা পরিষদকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন ।

কেন্দুয়া উপজেলার সকল বিভাগীয় কর্মকর্তাদের ন্যায় ও নিষ্ঠা ও স্বচ্ছতার সহিত কাজ করার পরামর্শ জানিয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় ।

উপজেলার সকল বিভাগীয় কর্মকর্তা

 

শিক্ষা বিভাগ

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় এবং নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার-কে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন যে,কেন্দুয়া উপজেলায় প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম স্বাভাবিক চলছে । সদ্য জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৯৪

 

বিস্তারিত আলোচনার পর কেন্দুয়া উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষার হার বৃদ্ধি, শিক্ষার মান উন্নয়ন সহ সহজ পাঠদানের বিষয়ে  শিক্ষকদের উদ্ভোদ্ধকরণ সহ সার্বিক শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করার জন্য উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা

উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা

চলমান পাতা-০৫

-০৫-

 

 

জন শিক্ষক-শিক্ষিকা-কে গত অক্টোবর/১৩ হতে মার্চ/২০১৪ পর্যন্ত সরকারী বেতন ভাতাদি প্রদান করা হয়েছে । বর্তমান মাস হতে নিয়মিত সরকারী বেতন-ভাতা প্রাপ্য হবেন । তাছাড়াও সরকারী করণের ফলে শিক্ষক-শিক্ষিকাগণের বকেয়া পাওনিাদি প্রদানের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে ।

তিনি আরও বলেন যে, ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরে ২৯ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২৯ জন দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে ।

তাছাড়া রস্ক প্রকল্পের আওতায় ২০১৪ সনে নতুন করে ৭৩টি আনন্দ স্কুলে ৭৩ জন শিক্ষক/শিক্ষিকা নিয়োগ কার্যক্রম চলমান রয়েছে ।

কর্মকর্তাকে অনুরোধ জানিয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় ।

 

০৮

বিবিধ-১

চেয়ারম্যান মোজাফরপুর, সান্দিকোণা, বলাইশিমূল, নওপাড়া, মাসকা সহ উপস্থিত ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয়-কে ধন্যবাদ জানান । ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ বলেন যে, কেন্দুয়া একটি অবহেলিত উপজেলা, তাই এ উপজেলা শিক্ষা ও জন্ম নিয়ন্ত্রণের হার বৃ্দ্ধি রাস্তা-ঘাট সহ কেন্দুয়া সার্বিক উন্নয়নে বলিষ্ট ভূমিকা রাকার জন্য অনুরোধ জানান এবং সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন ।

বিদায়ী ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোঃ খায়রুল ইসলাম খান সাহেব স্বাগত বক্তব্য দেন এবং তিনি বয়স্ক/ বিধবা ভাতা নিয়ে সমাজ সেবা ও সোনালী ব্যাংক, কেন্দুয়া শাখার অনিয়মের কথা পুনঃ ব্যক্ত করেন এবং বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য বর্তমান উপজেলা পরিষদকে অনুরোধ জানান ।

নব-নির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেগম জাহানারা রোজি বলেন যে, জনগণ তাকে নির্বাচিত করেছেন; জনস্বার্থে তিনি কাজ করে যাবেন এবং পরিষদ-কে সার্বিক সহযোগিতা করবেন। তিনি বলেন যে, স্কুল হল শিক্ষার দানের কেন্দ্রবিন্দু, তাই স্কুল সমূহ হতে রাজনীতি দূর করে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে হবে ।

 

বিস্তারিত আলোচনার পর কেন্দুয়া উপজেলার সার্বিক উন্নয়নে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিকতার সহিত কাজ করার জন্য অনুরোধ জানিয়ে সর্বনসম্মত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় ।

উপজেলা পরিষদ ।

চলমান পাতা-০৬

-০৬-

 

০৮

বিবিধ-১

নব-নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোঃ মোফাজ্জল হোসেন ভূঞা বলেন যে, তিনি বয়সে তরুণ, ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে থেকে দায়িত্ব পালন করার এবং পরিষদ-কে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন ।

       নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, কেন্দুয়া ও সভাপতি জনাব মোঃ দেলোয়ার হোসেন ভূঞা  কেন্দুয়া উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারণ-কে অন্তরের অন্তস্থল থেকে ধন্যবাদ জানান এবং কৃতজ্ঞতা  জ্ঞাপন করেন । তিনি বলেন যে, বিগত ২৭ এপ্রিল ২০১৪ খ্রিঃ তারিখে শপথ গ্রহণ করেন এবং  সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমানে মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব ইফতিকার

উদ্দিন তালুকদার পিন্টু মহোদয়ের সহিত আলোচনা করে ৪র্থ উপজেলা পরিষদ, কেন্দুয়া এর অদ্যকার তথা প্রথম সভার নোটিশ করা হয় এবং সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে । তিনি বলেন যে, মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয়ের সহিত পরামর্শ করে কেন্দুয়ার সার্বিক উন্নয়নে সচেষ্ট থাকবেন এবিষয়ে পরিষদের সদস্য তথা ইউপি চেয়ারম্যান ও বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন এবং এক পরিবারের হয়ে কাজ করার অনুরোধ জানান । তিনি বলেন যে, নেত্রকোনা জেলায় কেন্দুয়া উপজেলার শিক্ষার হার কম; শিক্ষার হার ও বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার পাশের হার বৃদ্ধিতে এবং শিক্ষার মান উন্নয়নে উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার-কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান ।

বিস্তারিত আলোচনার পর ৪র্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কেন্দুয়া উপজেলায় নব-নির্বাচিত সম্মানিত চেয়ারম্যানগণ ব্যাক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে থেকে দলমত নির্বিশেষে কেন্দুয়ার সার্বিক উন্নয়নে একনিষ্ঠ হয়ে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করা হয় ।

 

 

বিবিধ-২

উপজেলা প্রকৌশলী সভায় বলেন যে, উপজেলা পরিষদ আইন,২০০৯ এর  ‘৩৮’ ধারা এবং উপজেলা পরিষদ বাজেট (প্রণয়ন ও অনুমোদন) বিধিমালা, ২০১০  অনুসরণপূর্বক উপজেলা পরিষদের ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরের বাজেট ও কর্তপরিকল্পনা  তৈরী করতে হয় । তাই ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরের বাজেট ও

বিস্তারিত আলোচনান্তে ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরের বাজেট ও কর্তপরিকল্পনা  তৈরীর লক্ষ্যে আগামী ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে  উন্নয়ন প্রকল্প তালিকা (এডিপি) দাখিলের জন্য ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ-কে অনুরোধ জানিয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় ।

 

চলমান পাতা-০৭

 

-০৭-

 

বিবিধ-২

কর্মপরিকল্পনা  তৈরীর লক্ষ্যে আগামী ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে  উন্নয়ন প্রকল্প তালিকা (এডিপি) দাখিলের জন্য ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ-কে অনুরোধ জানান । উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি গুরুত্ব দেয়ার জন্য ইউপি চেয়ারম্যানগণকে অনুরোধ জনান ।

 

 

 

বিবিধ-৩

চেয়ারম্যান,সান্দিকোণা ইউপি বলেন যে, বর্তমান ডিজিটাল যোগে উপজেলা পরিষদের অধীন কোন কম্পিউটার নেই। তিনি উপজেলা পরিষদের জন্য ০১(এক) টি লেপটপ ও ০১ (এক) টি ডেস্কটপ কম্পিউটার, ০১ টি প্রিন্টার, ০১ টি ইউ.পি. এস ও ০১ টি কম্পিউটার টেবেল ক্রয়ের প্রস্তাব করেন।

বিস্তারিত আলোচনান্তে উপজেলা পরিষদের রাজস্ব তহবিল হতেউপজেলা পরিষদের জন্য ০১(এক) টি লেপটপ ও ০১ (এক) টি ডেস্কটপ কম্পিউটার, ০১ টি প্রিন্টার, ০১ টি ইউ.পি. এস ও ০১ টি কম্পিউটার টেবেল ক্রয়ের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গৃহী্ত হয় ।

 

 

বিবিধ-৪

মোজাফরপুর ও আশুজিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদ্বয় সভায় বলেন যে, কেন্দুয়া উপজেলাধীন সূতী সাইড়ুলি ও পাটেশ্বরী নদী ০২ (দুই) টি পলিদ্বার ভরাট হওয়ার কারণে নাব্যতা হারিয়ে ফেলেছে । ফলে শুষ্ক মৌসুমে নদী ০২ টিতে পানি না থাকার কারণে বুরো ফসলের সেচের সমস্যা হয় এবং পানি ধারণক্ষমতা কমে যাওয়ায় বর্ষকালে অল্প বৃষ্টিতেই অকাল বন্যার সৃষ্টি হয় এবং নদী ০২ টির দু’কুলের বুরো ফসল তলিয়ে যায়। বাড়ীঘল সহ গবধিপশুর ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয় ।

  এহেন কারণে ফসল, ঘরবাড়ী, গবাধিপশু তথা পরিবেশ রক্ষায় বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য নদী ০২ টি ড্রেজিং এর মাধ্যমে আশু খনন করা প্রয়োজন, এতে নদী ০২ টিতে শুষ্ক মৌসুমে পানি থাকবে এবং কৃষকগণ বুরো চাষে সেচের জন্য উপকারে আসবে। উক্ত প্রস্তাব উপস্থিত সকলেই সমর্থন করেন এবং সংশ্লিষ্ট সংস্থার মাধ্যমে নদী ০২ টি প্রয়োজনীয় খননের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান ।

সূতী সাইডুলী ও পাটেশ্বরী নদী ০২ টি ড্রেজিং এর মাধ্যমে খননের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার পর পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহযোগীতায় প্রকল্প গ্রহণ করতঃ জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডের আর্থিক সহায়তায় সূতী সাইডুলী ও পাটেশ্বরী নদী ০২ টি  ড্রেইজিং এর মাধ্যমে খনন করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলী, কেন্দুয়া।

 

অদ্যকার সভায় আর কোন আলোচনা না থাকায় সভাপতি উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে অদ্যকার সভার সমাপ্তি ঘোষণা  করেন ।

 

 

(মোঃ দেলোয়ার হোসেন ভূঞা)

চেয়ারম্যান

উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

 

 

স্মারক নং - ০৫.৩০.৭২৪৭.০০৯.০৬.০০২.১২- ২৯৯/১/(৩)                                                     তারিখঃ ১৩ এপ্রিল ২০১৪ খ্রিঃ ।

সদয় অবগতির জন্য অনুলিপি প্রেরণ করা হলোঃ

১।  মাননীয় সংসদ সদস্য ১৫৯, নেত্রকোণা -৩, কেন্দুয়া  - আটপাড়া নির্বাচনী এলাকা ।

২।  সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ, বাংলাদেশ সচিবালয়,ঢাকা ।

৩।  জেলা  প্রশাসক, নেত্রকোণা ।                                                                                       

(মোহাঃ রুহুল  আমিন)

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

unokendua @mopa.gov,bd

 

স্মারক নং - ০৫.৩০.৭২৪৭.০০৯.০৬.০০২.১২-২৯৯ /১/(৫০)                                                  তারিখঃ ১৩  এপ্রিল ২০১৪ খ্রিঃ ।

সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুলিপি প্রেরণ করা হলোঃ

১। চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

২।  ভাইস চেয়ারম্যান/ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

৩।  মেয়র, কেন্দুয়া পৌরসভা, কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

৪।  উপজেলা .................................... কর্মকর্তা,কেন্দুয়া,নেত্রকোণা ।

৫। চেয়ারম্যান ....................................... ইউনিয়ন পরিষদ (সকল),কেন্দুয়া,নেত্রকোণা।